Ticker

6/recent/ticker-posts

যখন মন খারাপ থাকবে তখন এই গল্পটা দেখে নিন | Motivational Story In Bengali | Positive Stories Bangla

যখন মন খারাপ থাকবে তখন এই গল্পটা দেখে নিন | Motivational Story In Bengali | Positive Stories Bangla


কোন এক মহান ব্যক্তি বলেছিলেন - টাকা পয়সা তো আমরা রোজগার করতেই থাকি, কিন্তু যেদিন থেকে আপনি মানুষের প্রার্থনা পেতে শুরু করবেন, সেদিন থেকে আপনার জীবনে চমৎকার ঘটতে থাকবে।


Motivational Story In Bengali

আজকের গল্পটি হল এক রাজা কে নিয়ে। যার কোনো সন্তান ছিল না। তিনি কোনো ভাবেই উত্তরাধিকারী নির্বাচন করতে পারছিলেন না। এদিকে রাজার বয়েস হয়ে এসেছিল। এবার দরকার হয়ে পড়েছিল ছিল এই রাজ্যকে এক নতুন রাজা দেবার।

এই ব্যাপারে তিনি মন্ত্রীদের সাথে আলোচনা করলেন। মন্ত্রীদের কেউ কেউ রাজাকে উপদেশ দিলেন কাউকে দত্তক নিয়ে নেবার জন্য। কেউ কেউ উপদেশ দিলেন মন্ত্রীদের মধ্যে থেকেই যাকে উনার পছন্দ তাকে রাজা করে দেবার জন্য। আবার কেউ কেউ উপদেশ দিলেন কোনো একটি প্রতিযোগিতার আয়োজন করার জন্য।

Motivational Story In Bengali
Motivational Story In Bengali

তো প্রথমে রাজামশাই ভেবে পাচ্ছিলেন না যে কার উপদেশ নেবেন। পরে তিনি অনেক ভাবনা চিন্তা করে ঠিক করলেন না কোন ধরনের প্রতিযোগিতা নয়, সরাসরি সাক্ষাৎকার নেওয়া হবে। যেই আসবে আমি তার সাথে সরাসরি কথা বলব, কিছু প্রশ্ন করব - তার মাধ্যমেই আমি জেনে নেব যে সে পরের রাজা হবার জন্য উপযুক্ত, না উপযুক্ত নয়।

এবার এটা শুনে এক মন্ত্রী প্রশ্ন করলেন - আচ্ছা রাজামশাই, এই সাক্ষাৎকার দেবার জন্য কোন কোন ধরনের মানুষ এখানে আসতে পারবেন?

রাজা বললেন - বয়েস্কো থেকে যুবক এবং সব ধরনের মানুষই এখানে পরের রাজা হবার জন্য সাক্ষাৎকার দিতে আসতে পারবেন।

এবার এই সাক্ষাৎকার এর কথা গ্রাম থেকে গ্রাম, রাজ্য থেকে রাজ্য সর্বত্র ছড়িয়ে পড়ল এবং বিভিন্ন জায়গা থেকে নানান ধরনের মানুষ রাজমহলে এসে জড় হতে লাগল।

এরকমই একটি ছোট্ট গ্রামের একটি ছেলে বাবার সাথে কৃষিকাজ করত। তো এই খবর পেয়ে সে তার বাবাকে বলল - বাবা, আমার একবার খুব ইচ্ছা হচ্ছে রাজামশাই সাথে সাক্ষাৎকার করার।

ছেলেটির কৃষক বাবা বললেন - তোমার যেটা ভাল লাগে তা তুমি নিশ্চই কর, কিন্তু আমার মনে হয় না কিছু হবে বলে।

ছেলেটি বলল - একবার চেষ্টা করেই দেখি না, তারপর যা হবে দেখা যাবে।

এরপর ছেলেটির বাবা মা আর বারন করলেন না, উনারা রাজি হয়ে গেলেন। তো পরের দিন ছেলেটি যখন সাক্ষাৎকার এর জন্য বাড়ি থেকে বেরোতে যাবে, সে দেখল তার কাছে ভালো কোন পোশাক নেই।

তার মনে মনে ভীষণ আফসোস হতে লাগল। সে মনে মনে ভাবতে লাগল এখন সে কিভাবে সাক্ষাৎকার দেবে? রাজামশাই যখন তাকে এই নোংরা পোশাকে দেখবে তার সাথে কি কথা বলবে? না, তাকে একটা ভাল পোশাক বানাতেই হবে।

এবার সে বাবার কাছে কিছু টাকা চাইল, কিন্তু ঘরে তেমন কিছু টাকা-পয়সা ছিল না। ফলে সে এদিক সেদিক থেকে কিছু টাকা ধার করে একটা সুন্দর জ্যাকেট বানালো। তার পোশাক গুলি ছিল পুরানো আবার কোথাও কোথাও একটু ছিড়েও গিয়েছিল। তো সেই পুরানো পোশাকের উপরেই সে জ্যাকেটা চাপিয়ে নিয়ে সাক্ষাৎকার দেবার জন্য রাজমহলের উদ্দেশ্যে রওনা দিল।

রাস্তায় যেতে যেতে তার মাথায় অনেক ধরনের চিন্তা আসতে লাগল, যে কি ধরনের প্রশ্ন রাজামশাই করতে পারেন। আমি কিভাবে উত্তর দেব। তো এসব চিন্তা করতে করতে সে প্রায় রাজমহলের কাছা কাছি পৌঁছে গেল। দূর থেকে রাজমহলের উঁচু পাচীল তার নজরে পড়ল। সে ধীরে ধীরে রাজমহলের দিকে এগিয়ে যাচ্ছিল।

তখনই সে এক ভিখারিকে দেখতে পেল রাস্তার ধারে বসে আছে। ঠান্ডার সময় ছিল, ফলে ভিখারিটি ঠান্ডায় কাঁপছিল। ভিখারিটি কাঁপতে কাঁপতে ছেলেটিকে বলল - বাবুজি আমাকে কিছু সাহায্য করতে পারেন? গায়ে জড়ানোর জন্য যদি কিছু একটা হয়।

ছেলেটির কাছে কিছুই ছিল না। না ছিল পয়সা কড়ি, না ছিল বেশি খাওয়ার দাওয়ার। কিন্তু এগুলো দিয়ে আর কি হবে, ভিখারিটির তো গায়ে জড়ানোর জন্য কাপড় চাই। এবার ছেলেটি তার পরনে জ্যাকেটির কথা মনে পড়ল। যেটা সে অনেক কষ্ট করে টাকা পয়সা ধার করে বানিয়েছিল। ভেবেছিল এটা দিয়ে কিছুটা তার সন্মান বাঁচবে।

যাইহোক ছেলেটি আর কিছু সাতপাঁচ না ভেবে তার গায়ের জ্যাকেটি খুলে ভিখারিটিক দিয়ে দিল। তারপর সে আবার রাজমহলের দিকে এগিয়ে গেল। রাজমহলে পৌঁছালে এক সৈনিক তাকে সরাইখানার রাস্তা দেখিয়ে দিলো, এবং বলল সেখানে গিয়ে অপেক্ষা করার জন্য।

ছেলেটি সরাইখানায় গিয়ে অপেক্ষা করতে লাগলো। ঘন্টা দুয়েক পরে তার সাক্ষাৎকারের সময় আসলো। এবার সে আরেকবার ভাবলো যে এই ময়লা পোশাক পরে রাজামশাই-এর সামনে যাবে কি যাবে না? যাও একটা জ্যাকেট ছিল সেটাও তো চলে গেছে। তারপর ভাবল না যাই, যা হবে দেখা যাবে। বাড়িতে গিয়ে অন্তত বাবাকে বলতে পারব যে রাজামশাই সাথে দেখা করে এসেছি।

ছেলেটি সেই ঘরে গিয়ে পৌঁছলো যেখানে সাক্ষাৎকার নেওয়া হবে। কিন্তু গিয়ে দেখল সেখানে রাজামশাই নেই। সে অপেক্ষা করতে থাকলো। কিছুক্ষণের মধ্যেই রাজামশাই সেখানে এসে পৌঁছালেন। এবার রাজামশাই কে দেখেই ছেলেটি থতমত খেয়ে গেল, তার মনে হতে লাগলো পায়ের তলা থেকে যেন মাটি সরে গেছে। সে ভেবে পাচ্ছিল না যে কি করবে, বা কি বলবে।

কারন রাজামশাই হলেন সেই ভিখারি যার সাথে কিছুক্ষণ আগে রাজমহলের বাইরে তার সঙ্গে দেখা হয়েছিল। যাকে ছেলেটি তার মূল্যবান জ্যাকেট টা দিয়ে দিয়েছিল। ছেলেটির মুখে যেন কথা আটকে গেছিল। কি বলবে ভেবে পাচ্ছিল না। তবুও সে কোনরকমে ইশারার মাধ্যমে এবং তোতলাতে তোতলাতে রাজামশাই কে প্রশ্ন করলো - আপনি কি সেই ভিখারি?

রাজামশাই বললেন - হ্যাঁ, আমি সেই ভিখারি। কিছুক্ষণ আগে তোমার সঙ্গে যার দেখা হয়েছিল।

এবার ছেলেটি একটু সাহস নিয়ে রাজামশাই কে প্রশ্ন করল - আপনি আমার সাথে এরকম কেন করলেন? এটা কি ধরনের পরীক্ষা আপনি নিচ্ছিলেন? আপনি আপনার জ্যাকেটটা নিয়ে নিলেন। আর এখন দেখছি আপনিই এখাণকার রাজা। আমি কিছুই বুঝতে পারছি না আমি কি বলবো?

রাজামশাই বললেন - চিন্তা করো না। যদি আমি প্রথমে রাজা হয়ে তোমার সামনে আসতাম তাহলে আমি যা যা বলতাম তাই তুমি করতে। তুমি এই দুনিয়ার সব কাজ করার চেষ্টা করতে যাতে আমাকে খুশী করা যায়। আমাকে প্রভাবিত করার চেষ্টা করতে যাতে তুমি পরের রাজা হত পার।

কিন্তু আমি তোমার সামনে সবার প্রথমে ভিখারি সেজে এলাম। আমি তোমার আসল চরিত্র জানার চেষ্টা করছিলাম, যে তুমি অন্তর থেকে কিরকম? ঠান্ডার সময় সেখানে ভিখারি সেজে আমি কাঁপছিলাম। তোমার কাছে ভাল বলতে শুধু একটা জ্যাকেটই ছিল। হয়তো অনেক কষ্ট করে তুমি একটা জোগাড় করেছিল। সেটাও তুমি আমাকে দিয়ে দিলে।

এরপর রাজামশাই আবার বললেন - তুমিই হলে আমার পরে এই রাজ্যের নতুন রাজা।

ছেলেটি প্রশ্ন করল - আপনি তো আমাকে কোনো প্রশ্ন করলেন না? এটা কি ধরনের পদ্ধতি নতুন রাজা নির্বাচনের জন্য?

রাজামশাই বললেন - আমি সব বুঝতে পেরে গেছি। আমার আর কিছু জানার নেই। আমি শুধু জানি - যে মানুষ অন্তর থেকে ভাল, যে বিনা স্বার্থে অন্যকে সাহায্য করতে পারে, বিনিময়ে কিছুই চায় না। নিজের কাছে কিছু না থাকা সত্ত্বেও যে মানুষ অন্যকে সাহায্য করতে চায়, সেই হল প্রকৃত ভালো মানুষ।

এই কারণেই এই রাজ্যের রাজা হবার জন্য আমি এমন একজন মানুষের খোঁজ করছিলাম, যে সবার আগে একজন ভালো মানুষ। আর এই জন্যেই আমি সর্ব ধরনের মানুষকে এখানে আসার আমন্ত্রণ জানিয়েছিলাম।

এই গল্পটি শুনলে সমস্ত দুঃখ দূর হয়ে যাবে | Gautam Buddha Story In Bengali | Positive Stories

Motivational Story In Bengali

জীবনে আমরা চাই সব মানুষ আমাদেরকে ভালোবাসুক, আমাদেরকে চাক, আমাদের ব্যপারে জানুক। কিন্তু সবথেকে গুরুত্বপূর্ণ হলো আপনি কি সবাইকে ভালবাসতে ইচ্ছুক, আপনি কি সবাইকে সাহাজ্য করার জন্য রাজি। জীবনে যদি কিছু হতে চান তো সবার আগে একজন ভালো মানুষ হন।

আর আমি আগেও গল্পের মাধ্যমে অনেকবার বলেছি - টাকা পয়সা তো আমরা রোজগার করতেই থাকি, কিন্তু যেদিন থেকে আপনি মানুষের প্রার্থনা পেতে শুরু করবেন, সেদিন থেকে আপনার জীবনে চমৎকার ঘটতে থাকবে। আপনার মধ্যে যে অল্প কমতি থাকবে, তাও দূর হয়ে যাবে। এবং আপনি আপনার লক্ষ্যে পৌঁছে ইতিহাস তৈরি করে ফেলবেন।

তাই আমি আবার বলবো - এমন কাজ করুন যা পুরো দুনিয়া আপনার মত করতে চায়, কারণ জিতবে তারাই যারা কিছু করে দেখাবে।

Think positive - Talk positive - Feel positive

শিক্ষাই আপনার জীবনের পথ | 20 best education quotes in Bengali | student motivation


বিশেষ দ্রষ্টব্যঃ

‘Freedoms Today’ নামে আমাদের আরেকটি YouTube channel আছে। যেখানে আমরা Network marketing-এর সম্বন্ধে ভিডিও বানিয়ে থাকি। আপনি যদি Network marketing-এর সম্বন্ধে জানতে চান এবং Network marketing শিখতে চান তো এই channel টি follow করতে পারেন। এবং আমাদের সাথে যোগাযোগ করতে চাইলে আপনি আমাদের website visit করতে পারেন।

Freedoms Today Website: http://www.freedomstoday.com/

Freedoms Today YouTube channel: https://www.youtube.com/FreedomsToday

Email: freedomstoday1@gmail.com



Post a Comment

0 Comments