Motivational story | ... এটাই আমাদের ভবিষ্যৎ গড়তে সাহায্য করবে | gautam buddha story

Motivational story | ... এটাই আমাদের ভবিষ্যৎ গড়তে সাহায্য করবে | Gautam buddha story


ভগবান বুদ্ধ বলছেন আমরা যা কিছু গ্রহণ করি না কেন, সেটা কোনও তথ্য বা বিচার হতে পারে অথবা কোন খাদ্য বস্তুও হতে পারে। এই দুটোই আমাদের জীবনকে প্রভাবিত করে। আমাদের ভবিষ্যৎ গড়তে সাহায্য করে। 

Motivational story, Life changing stories, bhagavan buddha story in Bengali
Gautam buddha story - Future

আজকের গল্প – ‘ভবিষ্যৎ’।

একবার এক ভিক্ষুক ভগবান বুদ্ধকে জিজ্ঞেস করলেন – হ্যে বুদ্ধ আপনি খাদ্যকে সবসময় প্রেমের সাথে, ভালবাসার সাথে গ্রহণ করতে বলেন। কিন্তু কেন? এবং খ্যদ্য সামান্য পরিমানে কেন গ্রহণ করতে বলেন?

আমরা যদি খাদ্য প্রেমের সাথে, ভালবাসার সাথে গ্রহণ না করি তাহলে কি সেটা খাদ্য হবে না? বা আমরা যদি অধিক মাত্রায় খাদ্য গ্রহণ করি তাহলে কি সেটা বিষের মত কাজ করবে?

ভগবান বুদ্ধ বললেন – আমরা যে ধরনের খাদ্য গ্রহণ করে থাকি আমাদের বিচার সেই অনুসারেই হয়ে থাকে। তারপর বললেন আমি তোমায় একটা ছোট গল্প বলি -

এই বলে ভগবান বুদ্ধ গল্প বলা শুরু করলেন –

একবার এক জঙ্গলে একজন সাধু বাবা থাকতেন। যে কোনো ব্যক্তিই তার কাছে তাদের সমস্যা নিয়ে যাক না কেন, সাধু বাবা পরক্ষনেই তার সমস্যা দূর করে দিতেন।

ধীরে ধীরে সাধু বাবার চর্চা গ্রাম থেকে গ্রাম ছড়িয়ে পড়ল, এবং বহু মানুষ তাদের সমস্যা নিয়ে এই সাধু বাবার কাছে আসতে শুরু করল। সাধু বাবাও তাদের সমস্যা দূর করে দিতে থাকল।

এই ভাবে দিনে দিনে সাধু বাবার চর্চা আরও বাড়তে লাগল, এবং বাড়তে বাড়তে একদিন রাজার কাছেও খবর এসে পৌঁছাল।

রাজা একদিন তার মন্ত্রীকে সাথে নিয়ে সাধু বাবার কাছে এলেন এবং বললেন – হে মহাত্মা আমি আপনার অনেক চর্চা শুনেছি। আপনার কাছে সব ধরনের সমস্যার সমাধান আছে। সুতরাং আমি চাই আপনি শুধু শুধু এই জঙ্গলে আর সময় নষ্ট না করে, আমার সাথে আমার মহলে থাকবেন। আমি আপনাকে সব ধরনের সুযোগ সুবিধা এবং আরামের ব্যবস্থা করে দেব।

আপনি এখানে ঠিকমত খাদ্যও পান না। গাছের ফল ছিঁড়ে খান। আপনি আমার সাথে মহলে চলুন। সেখান অনেক ধরনের সুস্বাদু খাবার আছে। আপনি সেখানে গিয়ে তার স্বাদ গ্রহণ করুন। এখানে কেন শুধু শুধু সময় নষ্ট করছেন?

সেই সাধুবাবা রাজাকে না করে দিলেন।

কিন্তু রাজা সেটা কিছুতেই মেনে নিলেন না। রাজা জোরজবস্তি করে সাধুবাবাকে তুলে নিয়ে এলেন। এবং সাধুবাবাকে তার কথামত সব ধরনের সুযোগ সুবিধার ব্যবস্তা করে দিলেন।

এই ভাবে সময় এগিয়ে গেল। সময়ের সাথে সাথে সাধুবাবার ব্যবহারও ধীরে ধীরে বদলাতে শুরু করল। এবং আপনি বিশ্বাস করবেন না, সেই মহলে থাকতে থাকতে একদিন সাধুবাবার ব্যবহার পুর পাল্টে গেল। এই ব্যপারটা সাধুবাবাও নিজেও বুঝতে পারছিলেন না যে তার সাথে এটা কি ঘটে চলেছে।

একদিন সাধুবাবা সুযোগ বুঝে সেখান থেকে পালিয়ে যায়। কিন্তু যাবার সময় উনি কিছু দামি হীরে জহরত, কিছু দামী মোহর এই সব সঙ্গে করে নিয়ে যায়।

রাজা সাধুবাবার পালিয়ে যাবার সংবাদ পেলেন। রাজা সেপাই পাঠালেন সাধুবাবাকে খোঁজার জন্য।

সেপাইরা সারা জায়গায় তন্ন তন্ন করে সাধুবাবাকে খুঁজলেন, কিন্তু খুঁজে পেল না।

সাধুবাবা জঙ্গলের দিকে পালালেন এবং ভাগতে ভাগতে ভীষণ ক্লান্ত হয়ে পড়লেন। অবশেষে তিনি গভীর জঙ্গলে এসে একটি গাছের নীচে বসে পড়লেন।

গাছের নীচে কিছুক্ষণ বসার পরেই গাছ থেকে একটি ফল তার সামনে পড়ে। সাধুবাবার খিদেও পেয়েছিল এই কারনে তিনি সেই ফলটি খেয়ে ফেললেন।

সেই ফলটি একটি ওষধি ফল ছিল। ফলটি সাধুবাবার পেটে যাবার পড় তিনি অসুস্থ হয়ে পড়লেন। যদি বিনা কারনে কোন ওষুধ খাওয়া হয় তো সেটা হানিকারক হতে পারে।

সাধুবাবা সেই ওষধি ফল খেয়ে এতটাই অসুস্থ হয়ে পড়েন যে তার জীবন অবসানের মত অবস্থা হয়ে আসে। তার শরীর শুকিয়ে একদম শুকনো কাঠের মত হয়ে যায়।

এবার তার মনে পড়ল আমি কেন রাজার ধন নিয়ে পালাচ্চ্ছি? আমি তো একজন সাধু! না জানি আমার কি হয়েছে, আমি শুধু শুধুই এই ধন নিয়ে পালিয়ে বেড়াচ্ছি।

সাধুবাবা অনুতপ্ত হয়। এবং সে আবার রাজ মহেলে ফিরে যায় রাজাকে তার ধন দৌলত ফেরত দিতে।

রাজা এটা দেখে বিস্মিত হয়ে গেলেন এবং বললেন – আপনি যখন ফেরতই আসবেন তখন এই ধন দৌলত নিয়ে পালিয়েছিলেন কেন?

সাধুবাবা রাজাকে বললেন – হ্যে রাজন আমাকে ক্ষমা করুন। আমি বিগত কয়েক মাস আপনার এখানে অন্ন গ্রহণ করেছি। যার কারনে আমার চিন্তা ঠিক আপনার মত হয়ে যায়। এটাই ভাল হল যে সেই গাছিটি আমাকে একটি ওষধি ফল দেয়, যেটা খেয়ে আমি অসুস্থ হয়ে পড়ি। আর আমি আপনার যত অন্ন খেয়েছি তা সেই অসুস্থতার কারনে সব আমার শীরের থেকে বেরিয়ে যায়। এবং আমার হোস ফিরে আসে যে আমি কিছু খারাপ কাজ করেছি।

তারপর কিছুক্ষণ থেমে সাধুবাবা রাজাকে আবার বললেন – হ্যে রাজন আপনার কাছে যত ধন দৌলত আছে তা আপনি সব পরিশ্রম করে অর্জন করেন নি। হয় আপনি তা ছিনিয়ে এনেছেন অথবা জোর করে আদায় করেছেন। সেই কারনে এই ধন আমার বুদ্ধিকেও পরিবর্তন করে দিয়েছিল।

গল্প শেষে ভগবান বুদ্ধ বলেলন - আমার যা গ্রহণ করি এবং আগামী দিনে যা গ্রহণ করব সেটাই আমাদের ভবিষ্যৎ তৈরী করতে সাহায্য করবে।

এই গল্পটা থেকে কি শিখলাম?

তো বন্ধুরা এই ছোট গল্পটা থেকে আমরা এটাই শিখলাম যে। আমরা জীবনে কোন কিছু গ্রহণ করার আগে আমাদের অবশ্যই দেখা উচিত, যা আমরা গ্রহণ করছি তা কোথা থেকে আসছে? সেটা কি ক্রোধের কারনে আসছে, লোভের কারনে আসছে, হিংসার কারনে আসছে না প্রেমের কারনে বা ভালবাসার কারনে আসছে? কারন আপনি যাই গ্রহণ করুন না কেন সেটা কোন বিচার হতে পারে বা খাদ্যও হতে পারে এই দুটোই আপনার ভিবিষ্যৎ গড়তে সাহায্য করবে।

তাই আমি বার বার বলি এমন কিছু করুন যা পুর দুনিয়া আপনার মত করতে চায়। কারন জীতবে তারাই যারা কিছু করে দেখাবে।

ইতিবাচক ভাবুন – ইতিবাচক বলুন – ইতিবাচক অনুভব করুন

Motivational story | যারা ভাবছেন – আমার জীবনে আর কিছু হবে না | inspirational short stories


বিশেষ দ্রষ্টব্যঃ

‘Freedoms Today’ নামে আমাদের আরেকটি YouTube channel আছে। যেখানে আমরা Network marketing-এর সম্বন্ধে ভিডিও বানিয়ে থাকি। আপনি যদি Network marketing-এর সম্বন্ধে জানতে চান এবং Network marketing শিখতে চান তো এই channel টি follow করতে পারেন। এবং আমাদের সাথে যোগাযোগ করতে চাইলে আপনি আমাদের website visit করতে পারেন।

Freedoms Today Website: http://www.freedomstoday.com/

Freedoms Today YouTube channel: https://www.youtube.com/FreedomsToday

Email: freedomstoday1@gmail.com

Comments

  1. প্রিয় বন্ধু, আপনার স্বপ্ন পুরনের গল্পটি অসাধারন! কিন্তু একটা কথা বলতে চাই যে, যার স্বপ্ন আছে সে অন্যেরও স্বপ্ন পুর্ন করে,পক্ষান্তরে যার স্বপ্ন নেই সে
    অন্য কারোর ই স্বপ্ন পুরন করতে পারেনা।

    ReplyDelete

Post a Comment