Motivational story | অসৎ কাজকে পরিত্যাগ করুন, নাহলে কর্মফল ভুগতেই হবে | inspirational short stories

Motivational story | অসৎ কাজকে পরিত্যাগ করুন, নাহলে কর্মফল ভুগতেই হবে | inspirational short stories


সব সময় ভাল কাজের মধ্যে থাকুন। আর অসৎ কাজকে পরিত্যাগ করুন। তা নাহলে কর্মফল ভুগতেই হবে।

Positive stories bangla, inspirational short stories, Positive bangla golpo
Motivational Story - Fisherman

আজকের গল্প – ‘জেলে’।

এক গ্রামে পরেশ নামে এক গরীব জেলে ছিল। গ্রামের আশে পাশের খালে বিলে মাছ ধরেই সে তার জীবিকা নির্ভাহ করত। সে কোনদিন ভাল মাছ পেত, কোনোদিন পেত না। পরেশ গরীব জেলে হলেও সে ছিল ভীষণ সৎ, এবং তার উপরওয়ালার প্রতি ভালবাসা ও বিশ্বাস ছিল অগাধ।

একদিন পরেশ তার পাশের গ্রামের একটি বিলে মাছ ধরতে যায়। কায়েক বার জাল মারার পরেই তার জালে একটি বড় মাছ ধরা পড়ে। মাছটি দেখে পরেশ ভাবল, যাক অনেক দিন পরে একটি ভাল মাছ পেয়েছি, আজ আর এটা বাজারে বিক্রি করব না। বাড়িতে সবাই মিলে আনন্দ করে খাব।

পরেশ জ্যান্ত মাছটা নিয়ে মহা আনন্দে রাস্তা ধরে বাড়ি ফিরছিল। কিন্তু কিছুদূর আসার পরেই সেই গ্রামে কালুয়া নামে এক গুন্ডা তার রাস্তা আটকে দাঁড়ায়।

কালুয়া হুঙ্কার দিয়ে পরেশকে বলে - এই মাছটা আমার, এটা আমাকে দিয়ে দে। এই বলে নিজের শক্তি দেখিয়ে পরেশের থেকে জোর করে মাছটা ছিনিয়ে নেয়।

বেচারা পরেশ আর কি করে! মনের দুঃখে সে একবার আকাশের দিকে চেয়ে, একটা গভীর নিঃশ্বাস ফেলে ধীরে ধীরে আবার মাছ ধরতে চলে যায়।

এদিকে কালুয়া পরেশের থেকে জ্যান্ত মাছটা নিয়ে কিছুদূর এগিয়েছে হঠাৎ মাছটা তার হাতের বুড়ো আঙুলে কামড়ে দেয়।

প্রথমে কালুয়া কিছুই বোঝে নি। কিন্তু কয়েকদিন পরে দেখল সেই কামড়ানো জায়গার ঘা হয়ে যাচ্ছে। সে ডাক্তারের কাছে যায়।

ডাক্তার তার আঙুলে ওষুধ লাগিয়ে ব্যান্ডেজ করে দেয় এবং বলে চারদিন পড়ে এসে আবার দেখেয়ে যেতে।

কালুয়া চারদিন পড়ে আবার ডাক্তারের কাছে যায়। কিন্তু ব্যান্ডেজ খুলে দেখা যায় তার ওখানে আরো গভীর ক্ষত হয়ে পচন ধরেছে।

ডাক্তার পরীক্ষা নিরীক্ষা করে তাকে বলে – যে তোমার আঙুলটা কাটতে হবে, না হলে এরপর তোমার কব্জি অবধি কাটা পড়বে।

কালুয়া আর কি করে, বাধ্য হয়ে তার আঙুল কাটতেই হয়। আঙুল কাটার পরে ডাক্তার আবার ব্যান্ডেজ করে দেয় এবং আবার চারদিন পড়ে আসতে বলে।

কালুয়া চারদিন পড়ে আবার ডাক্তারের কাছে যায়। কিন্তু ব্যান্ডেজ খুলে দেখা যায় তার ওখানেও ক্ষত আরো গভীর হয়ে পচন ধরেছে।

ডাক্তার আবার পরীক্ষা নিরীক্ষা করে তাকে বলে - তোমার কব্জি অবধি কাটতে হবে, না হলে এরপর তোমার কনুই অবধি কাটা পড়বে।

কালুয়ার কব্জি অবধি কাটা পড়ল। ব্যান্ডেজ করে সে বাড়ি ফিরল। চারদিন পড়ে আবার ডাক্তারের কাছে গেল। ব্যান্ডেজ খুলে দেখা গেল ক্ষত আরো গভীর।

এবার ডাক্তার বলল - তোমার কনুই অবধি কাটতে হবে, না হলে এরপর তোমার কাঁধ থেকে পুর হাতটাই কাটা পড়বে।

কালুয়ার কনুই অবধি কাটা পড়ল। ব্যান্ডেজ করে সে বাড়ি ফিরল। চারদিন পড়ে আবার ডাক্তারের কাছে গেল। ব্যান্ডেজ খুলে দেখা গেল ক্ষত আরো গভীর।

এইভাবে কালুয়ার পুর হাতটাই কাটা গেল। কালুয়া ভাবছিল এবার সে কি করবে? কারন এবার তো তার শরীর চলে যাবে। তারপর সে আর কিছু না ভেবে এক সাধুবাবার স্মরণাপন্ন হল।

সাধুবাবা সব দেখে তাকে প্রশ্ন করল - তুই কি কোন অসৎ কাজ করেছিস? কোন ভুল কাজ করেছিস।

কালুয়া বলল - হ্যাঁ আমি একটা ভুল কাজ করেছি। আমি জোর করে এক জেলের কাছ থেকে তার মাছ কেড়ে নিয়েছিলেম। জেলে নিজে পরিশ্রম করে সেই মাছটি ধরেছিল। আর আমি সেটা জোর করে খেতে চেয়েছিলাম। সে সেই কাহানিটা পুরটা সাধুবাবাকে বলল।

সাধুবাবা সব শুনে তাকে বলে – তুই এখুনি যা, সেই জেলেকে খুঁজে বার কর। তার কাছে গিয়ে ক্ষমা চা। একমাত্র সেই তোকে বাঁচাতে পারবে।

কালুয়ে এবার হন্তদন্ত হয়ে সেই পরেশের গ্রামে যায় তাকে খুঁজতে। অনেক খোঁজার পর সে পরেশের দেখা পায়।

পরশকে দেখতেই কালুয়া তার পায়ে পড়ে যায় এবং বলে ভাই তুমি আমাকে বাঁচাও। তুমি কি আমাকে কোন অভিশাপ দিয়েছ? কোন বদদোয়া দিয়েছ? তুমি এমন কি তন্ত্র মন্ত্র করলে যে আজ আমার এই অবস্তা। কি করলে আমার সাথে?

পরেশ সাধাসিধে ভাবেই উত্তর দিল – আমিতো কিছুই করি নি! শুধু আকাশের দিকে তাকিয়ে উপরওয়ালাকে বললাম – হে প্রভু এই মানুষটা আমাকে ওর নিজের শক্তি দেখাল, তুমি ওকে তোমার শক্তি দেখিয়ে দাও।

এই গল্পটা থেকে কি শিখলাম?

তো বন্ধুরা এই ছোট গল্পটা থেকে আমরা একটা অনেক বড় শিক্ষা পাই – আমরা সবসময় দেখি মানুষ তার নিজের থেকে কমজোর মানুষকে তার শক্তি প্রয়োগ করে থাকে। কিন্তু তারা ভুলে যায় মাথার উপরে উপরওয়ালা একজন আছেন, যিনি সর্বশক্তিমান।

সুতরাং ভুল করেও কাউকে নিজের শক্তি দেখাবেন না। যদি দেখান তো মনে রাখবেন কালুয়ার মত, আপনাকেও কর্মফল ভুগতেই হবে। আজ মানুষ যে এত দুঃখী এটা তার কর্মফলেরই একটা কারণ।

তাই আমি বলব যদি প্রকৃত সুখী হতে চান, তো অসৎ কর্ম থেকে বিরত থাকুন। পারলে মানুষের উপকার করুন। আর এমন কিছু করুন যা মানুষ আপনার মত করতে চায়। কারন জীতবে তারাই যারা কিছু করে দেখাবে।

ইতিবাচক ভাবুন – ইতিবাচক বলুন – ইতিবাচক অনুভব করুন

Motivational story | ভরসা রাখুন উনি কারো ক্ষতি হতে দেন না | Life changing stories

বিশেষ দ্রষ্টব্যঃ

‘Freedoms Today’ নামে আমাদের আরেকটি YouTube channel আছে। যেখানে আমরা Network marketing-এর সম্বন্ধে ভিডিও বানিয়ে থাকি। আপনি যদি Network marketing-এর সম্বন্ধে জানতে চান এবং Network marketing শিখতে চান তো এই channel টি follow করতে পারেন। এবং আমাদের সাথে যোগাযোগ করতে চাইলে আপনি আমাদের website visit করতে পারেন।

Freedoms Today Website: http://www.freedomstoday.com/

Freedoms Today YouTube channel: https://www.youtube.com/FreedomsToday


Email: freedomstoday1@gmail.com

Comments